• আপডেট টাইম : 10/01/2021 08:05 PM
  • 198 বার পঠিত
  • এম এ শাহীন,
  • sramikawaz.com

নারায়ণগঞ্জের আদমজী ইপিজেডের ফ্যাশন সিটি ( কুনতং অ্যাপারেলস) গার্মেন্টসের শ্রমিক ও নেতৃবৃন্দের উপর পুলিশের বর্বরোচিত হামলার প্রতিবাদ ও বকেয়া পাওনা পরিশোধসহ কারখানা খুলে দেয়ার দাবিতে গার্মেন্ট শ্রমিক ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্র (জিটিইউসি)'র উদ্যোগে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। রবিবার ( ১০ জানুয়ারি) দুপুর ১২ টা থেকে ১ টা পর্যন্ত নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাবের সামনে এ মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করা হয়েছে।

মানববন্ধনে সভাপতিত্ব করেন গার্মেন্ট শ্রমিক ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্রের নারায়ণগঞ্জ জেলা কমিটির সভাপতি এম এ শাহীন বক্তব্য রাখেন কেন্দ্রীয় কমিটির নেতা দুলাল সাহা, বাংলাদেশ ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্রের জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক বিমল কান্তি দাস, গার্মেন্ট শ্রমিক ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্রের জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন, সহ-সভাপতি আব্দুস সালাম বাবুল, যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক দিলীপ কুমার দাস, শ্রমিক জাগরণ মঞ্চের কেন্দ্রীয় নেতা জাহাঙ্গীর আলম গোলক, মানবাধিকার কর্মী ফরিদা ফরাজী, ফ্যাশন সিটির শ্রমিক সিমা, রাজিয়া, শিউলি ও সেতারা বেগম প্রমূখ।

মানববন্ধনে নেতৃবৃন্দ বলেন- আদমজী ইপিজেডের ফ্যাশন সিটি (কুনতং অ্যাপারেলস) গার্মেন্টস কর্তৃপক্ষ গত চার মাস যাবত কারখানাটি লে-অফ করে রেখেছে। লে-অফ অনুযায়ী শ্রমিকদের যেটুকু ভাতা দেয়া হয় সেটুকুও ঠিকঠাক সময় মতো দেয়া হচ্ছে না। গত ডিসেম্বর মাসের বকেয়া পাওনা ৭ জানুয়ারি পরিশোধের তারিখ দিয়ে কর্তৃপক্ষ পরিশোধ করেনি। কারখানা ১২ জানুয়ারি খোলার কথা ছিলো কিন্তু কর্তৃপক্ষ আগেভাগেই জানায় কারখানা খুলা হবে না। এতে শ্রমিকরা ক্ষুব্ধ হয়ে আদমজী ইপিজেডের মূল ফটকের সামনে অবস্থান নিয়ে বকেয়া পাওনা আদায় ও কারখানা খোলার দাবিতে শান্তিপূর্ণ ভাবে বিক্ষোভ করে। পুলিশ শ্রমিকদের শান্তিপূর্ণ আন্দোলনের উপর হামলা চালিয়ে ছত্রভঙ্গ করে দেয়। পরবর্তী শনিবার (৯ জানুয়ারি) সকালে শ্রমিকরা ফের ইপিজেডের গেইটের সামনে অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ করতে থাকলে দুপুর ১২ টার দিকে আন্দোলনরত শ্রমিকদের উপর পুলিশ লাঠিচার্জ, টিয়ারশেল, পিপার স্প্রে ও রাবার বুলেট নিক্ষেপ করে। পুলিশের এই ন্যাক্কার জনক হামলায় জিটিইউসি'র জেলা কমিটির সহ-সাধারণ সম্পাদক দিলীপ কুমার দাস, শ্রমিক জাগরণ মঞ্চের নেতা জাহাঙ্গীর আলম গোলক, মানবাধিকার কর্মী ফরিদা ফরাজী সহ অর্ধশতাধিক শ্রমিক গুরুতরভাবে আহত হয়েছে। পুলিশের এই বর্বরোচিত হামলার প্রতিবাদ ও বিচার দাবি করে নেতৃবৃন্দ আগামী ১২ জানুয়ারির মধ্যে শ্রমিকদের বকেয়া পাওনা পরিশোধ ও কারখানা খুলে দিয়ে উৎপাদনের সুষ্ঠু পরিবেশ ফিরিয়ে আনার আহ্বান জানান। অন্যথায় তীব্র আন্দোলন গড়ে তুলে দাবি আদায় করার হুঁশিয়ারি দেন।

 

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
ফেসবুকে আমরা...