sa.gif

৬০ ভাগ, ১০০ ভাগের ধাঁ ধাঁ
ডরিন কারখানার শ্রমিকদের বিক্ষোভ, ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া
মো.কামরুজ্জামান :: 20:54 :: Saturday May 9, 2020 Views : 516 Times

শতভাগ বেতনের দাবিতে বিক্ষোভ করেছে গাজীপুরের জিরানীতে অবস্থিত ডরিন গার্মেন্টস কারখানা প্রায় পাঁচ হাজার শ্রমিক। এসময় একই দাবিতে আশে-পাশের আরও কয়েকটি গার্মেন্ট কারখানার শ্রমিকরা বিক্ষোভ করেছে। এ সময় বিক্ষোভ, ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার এ ঘটনা ঘটে। শনিবার ৯ মে এ বিক্ষোভের ঘটনা ঘটে।

 

শ্রমিকরা জানান, কারখানার সকল শ্রমিককে ৬০ ভাগ বেতন দেওযার কারণে তারা প্রতিবাদ করেন। এই প্রতিবাদের কারণে শনিবার থেকে অনির্দিষ্ট কালের জন্য কারখানা বন্ধ ঘোষনা করে। আজ ৯ মে কারখানার সামনে এসে কারখানা খুলে দেওযা ওশতভাগ বেতন দেওয়ার দাবিতে বিক্ষোভ শুরু করলে শ্রমিকদের মারধার, টিয়ার সেল নিক্ষোপ ও ধাওয়া, পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে।

গণতান্ত্রিক শ্রমিক ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক আব্বাস উদ্দিন শ্রমিক আওয়াজকে বলেন, শ্রমিকরা শতভাগ বেতনের দাবি করে আসছিলেন।এর মধ্যে যে সব শ্রমিক কাজ করেছিলেন মালিক পক্ষ তাদেরও ৬০ ভাগ বেতনের জন্য পে স্লীপ দেয়, আবার যে সব শ্রমিক এপ্রিল মাস জুড়ে করেননি তাদেরও ৬০ ভাগ বেতনের পে-স্লীপ দেয়। এটা অন্যায়। এরপর শ্রমিকরা শতভাগ বেতনের জন্য দাবি করলে কারখানা অনির্দিষ্ট কালের জন্য বন্ধ ঘোষনা করে।

কারখানাটির শ্রমিকরা জানান, রাতে শ্রমিকদের মোবাইল ফোনে জানায়, ডরিন কারখানা অনিদিষ্ট্যকালের জন্য বন্ধ। এমন ঘোষনার পরও সকালে ওই কারখানার শ্রমিকরা বেতন প্রদানের বৈষম্যের অভিযোগ তুলে বিক্ষোভ করতে থাকে। একপর্যায়ে তারা নবীনগর-চন্দ্রা সড়কে এসে অবরোধ করে আশপাশের কারখানাগুলো থেকে শ্রমিকদের বের করতে ইটপাটকেল নিক্ষেপ করেন।

একসময় আশুলিয়ার সিনহা, অকো টেক্স, নরদানসহ বেশ কয়েকটি কালকানার শ্রমিকরা বিক্ষোভে শুরু করে। পুলিশ এসে তাদের সরিয়ে দিতে চাইলে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। এক পাযায়ে পুলিশ টিয়ারসেল নিক্ষেপ করে। এ ঘটনায় কয়েকজন শ্রমিক ও পুলিশ আহত হয়েছেন।

শিল্প পুলিশ-১ এর পুলিশ সুপার (এসপি) সানা শামীনুর রহমান গণমাধ্যমকে বলেন, বকেয়া ও শত ভাগ বেতনের দাবিতে শ্রমিকেরা শনিবার বিক্ষোভ করেছেন। তাঁরা কারখানা থেকে বের হয়ে সড়ক অবরোধ ও ভাঙচুর করেন। পরে তাঁদের ছত্রভঙ্গ করে দেওয়া হয়। পরিস্থিতি পুলিশের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে।

যে ডরিন কারখানায় ৬০ ভাগ বেতন দেওয়ার দাবিতে প্রতিবাদ শুরু হয়, সেই কারখানার প্রশাসনিক কর্মকর্তা রাশেদুল ইসলাম শ্রমিক আওয়াজকে বলেন, করোনা ভাইরাস সংক্রমণ রোধে সাধারণ ছুটি ঘোষনার সাথে সাথে বন্ধ হয়। এরপর ২৫ এপ্রিল আংশিকভাবে চালু হয়। বৃহস্পতিবার ৭ মে সরকারী সিদ্ধান্ত মোতাবেক যে সব শ্রমিক পুরো মাস বাসায় ছিল তাদের ৬০ ভাগ বেতন ; যে সব শ্রমিক ২৫দিন বাসায় ছিল আর ৬দিন কাজ করেছে তাদের ২৫ দিনের ৬০ ভাগ হিসাবে ও ৬দিনের ১০০ ভাগ হিসাবে বেতন দেওয়ার প্রস্তুতি নেয়। বিষয়টি শ্রমিকদের মধ্যে জানা-জানি হয়ে গেলে শ্রমিকরা বিক্ষোভ শুরু করে। শুক্রবার অফিস চলা সময়ে শ্রমিকরা টেবিল, মেশিন ও কম্পিউটার ধাক্কাধাক্কি করে। এ কারণে রাতে কারখানা অনির্দিষ্ট কালের জন্য বন্ধ ঘোষনা করে ফোনে শ্রমিকদের জানানো হয়। নিরাপত্তার জন্য বিষয়টি পুলিশকেও জানানো হয়। পরের দিন আজ শনিবার বিক্ষোভের ঘটনা ঘটে।



Comments





Pakkhik Sramik Awaz
Reg: DA5020
News & Commercial:
11/1/B, Kobi Josimuddin Road, Uttor Komlapur,Motijheel, Dhaka-1000
email: sramikawaznews@gmail.com
Contact: +880 1972 200 275, Fax: +880 77257 5347

Legal & Advisory Panel:
Acting Editor: M M Haque
Editor & Publisher: Zafor Ahmad

Developed by: Expert IT Solution