sa.gif

রানা প্লাজা ধসের দিন ২৪ এপ্রিল রাষ্ট্রীয়ভাবে গার্মেন্টস শ্রমিক শোক দিবস পালনের দাবি
ডেস্ক প্রতিবেদন :: 23:09 :: Sunday April 14, 2019 Views : 201 Times

রানা প্লাজা ধসের ষষ্ঠবার্ষিকীতে ২৪এপ্রিলকে রাষ্ট্রীয়ভাবে গার্মেন্টস শ্রমিক শোক দিবস পালনের দাবি জানিয়েছে গার্মেন্টস শ্রমিক ফ্রন্ট নারায়ণগঞ্জ জেলা শাখা।দাবি পূরণে সংগঠনটি সমাবেশ ও মিছিলও করেছে। শুক্রবার ১২ এপ্রিল বিকাল ৪ টায় নারায়ণগঞ্জ কেন্দ্রীয় শহিদ মিনারে এ সমাবেশ ও পরে শহরে মিছিল অনুষ্ঠিত হয়েছে।


গার্মেন্টস শ্রমিক ফ্রন্ট নারায়ণগঞ্জ জেলার সভাপতি সেলিম মাহমুদের সভাপতিত্বে সমাবেশে প্রধান বক্তা হিসেবে বক্তব্য রাখেন, সমাজতান্ত্রিক শ্রমিক ফ্রন্ট কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি আব্দুর রাজ্জাক। সমাবেশে আরও বক্তব্য রাখেন, সমাজতান্ত্রিক শ্রমিক ফ্রন্ট নারায়ণগঞ্জ জেলার সভাপতি আবু নাঈম খান বিপ্লব, গার্মেন্টস শ্রমিক ফ্রন্ট নারায়ণগঞ্জ জেলার সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম গোলক, সহসভাপতি সাইফুল ইসলাম শরীফ, কাঁচপুর শাখার সভাপতি আমানউল্লাহ আমান, সিদ্দিরগঞ্জ থানার সাধারণ সম্পাদক রুহুল আমিন সোহাগ, বিসিক শাখার সাধারণ সম্পাদক আবু সাঈদ সাঈদুর, রূপগঞ্জ শাখার সভাপতি সোহেল, গাবতলী-পুলিশ লাইন শাখার সাধারণ সম্পাদক হাসনাত কবীর, নারায়ণগঞ্জ জেলার দপ্তর সম্পাদক কামাল পারভেজ মিঠ প্রমুখ।

সমাবেশে প্রধান বক্তা আব্দুর রাজ্জাক বলেন, ভয়াবহ রানা প্লাজা ধসের ষষ্ঠ বছর পূর্ণ হতে যাচ্ছে। ২০১৩ সালের ২৪ এপ্রিল রানা প্লাজা ধসে ১১৩৬ জন শ্রমিক মৃত্যুবরণ করে। নিখোঁজ হয়েছে ৩০০ জনের অধিক এবং আহত হয় ২৫০০ শ্রমিক। সারাকা, স্পেক্ট্রাম, কে.টি.এস, তাজরিন এরূপ অসংখ্য শ্রমিক হত্যাকাণ্ডের ঘটনার বিচারহীনতার মতোই রানা প্লাজা হত্যাকাণ্ডের জন্য যারা দায়ী এখন পর্যন্ত তাদের শাস্তি নিশ্চিত করা হয়নি। দায়িত্ব অবহেলার জন্য দায়ী অসাধু সরকারি কর্মকর্তা আর মুনাফালোভী মালিকদের বিচারের মুখোমুখি হতে হয়নি বলেই রানা প্লাজা হত্যাকাণ্ডের পরও টেম্পাকো, মাল্টি ফ্যাবসের মত কর্মস্থলে শ্রমিকের জীবনহানীর মিছিল থামানো যায়নি।

তিনি আরও বলেন, রানা প্লাজা ধসে সহস্রাধিক শ্রমিক নিহতের ঘটনার পরপরই কর্মস্থলে শ্রমিকের মৃত্যুতে ক্ষতিপূরণের হার কত হওয়া উচিত তার একটি প্রস্তাবনা দেয়া হয়েছিল। সমাজতান্ত্রিক শ্রমিক ফ্রন্ট তার প্রস্তাবনায় সংশ্লিষ্ট ILO Convention & Fatal accident Act -1855 এর আলোকে Lost of year earning অনুযায়ী আজীবন আয়ের পরিমাণ হিসাব করে পরিবার প্রতি ৪৮লাখ টাকা ক্ষতিপূরণের দাবি করেছিল।


আব্দুর রাজ্জাক বলেন, পরবর্তীতে অধিকাংশ জাতীয় পর্যায়ের শ্রমিক সংগঠনের পক্ষ থেকেও মালিকের আবহেলায় মৃত্যুজনিত কারণে আজীবন আয়ের সমপরিমাণ অর্থ ক্ষতিপূরণ প্রদানের বিধান করার দাবি উচ্চারিত হয়েছিল। হাইকোর্টের নির্দেশনায় গঠিত ক্ষতিপূরণ নির্ধারণ কমিটি ও ক্ষতিগ্রস্ত শ্রমিক পরিবার প্রতি ১৫লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ নির্ধারণের প্রস্তাব করেন। লাখ লাখ শ্রমিকের যথার্থ ক্ষতিপূরণের দাবিকে উপেক্ষা করে কর্মস্থলে শ্রমিকের মৃত্যুতে মাত্র ২লাখ টাকা এবং স্থায়ী পঙ্গু হলে মাত্র ২লাখ ৫০ হাজার টাকা ক্ষতিপূরণের বিধান রেখে সরকার গত বছর নির্বাচনী ডামাডোলের আড়ালে শ্রম আইন সংশোধন করেছে। আমরা অবিলম্বে শ্রম আইনের এই অগণতান্ত্রিক সংশোধোনি বাতিল করে কর্মস্থলে শ্রমিকের মৃত্যুতে আজীবন আয়ের সমপরিমাণ ক্ষতিপূরণ প্রদানের বিধান করার দাবি জানাই।

নেতৃবৃন্দ ২৪ এপ্রিলকে রাষ্ট্রীয়ভাবে গার্মেন্টস শ্রমিক শোক দিবস ঘোষণা, রানা প্লাজা ভবন ধসে মালিকসহ দায়ীদের সর্বোচ্চ শাস্তি, রানা প্লাজা ভবনের সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করে শ্রমিক কলোনী এবং নিহত শ্রমিকদের স্মরণে রানা প্লাজার স্থানে ও জুরাইন কবরস্থানে শহিদ বেদী নির্মাণের দাবি জানান।

 



Comments





Pakkhik Sramik Awaz
Reg: DA5020
News & Commercial:
85/1 Naya Paltan, Dhaka 1000
email: sramikawaznews@gmail.com
Contact: +880 1972 200 275, Fax: +880 77257 5347

Legal & Advisory Panel:
Acting Editor: M M Haque
Editor & Publisher: Zafor Ahmad

Developed by: Expert IT Solution