sa.gif

২ জানুয়ারি ছিল সিরাজ শিকদারের মৃত্যু বাষির্কি
আওয়াজ ডেস্ক :: 13:15 :: Friday January 5, 2018



দেশ স্বাধীন হওয়ার আগ থেকেই সিরাজ শিকদার চীনপন্থী রাজনীতি করতেন। ১৯৬৭ সালে তিনি ছাত্র ইউনিয়নের কেন্দ্রীয় কমিটির সহসভাপতি নির্বাচিত হন।
‘৭১ এ বরিশালের পেয়ারা বাগান, আটঘর, কুরিয়ানায় অসংখ্য মুক্তিযোদ্ধাকে তার নেতৃত্বে হত্যা করা হয়। সশস্ত্র বিপ্লবের মাধ্যমে সমাজতন্ত্র প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে প্রথমে “জাতীয় মুক্তি ফ্রন্ট এবং পরে “পূর্ব বাংলা সর্বহারা পার্টি”নামে আন্ডারগ্রাউন্ড সশস্ত্র বাহিনী গড়ে তোলেন। তার নেতৃত্বে ১৯৭২ থেকে ‘৭৪ পর্যন্ত হাজার হাজার আওয়ামীলীগ নেতা-কর্মী ও পুলিশ সদস্যকে হত্যা করেছে। তাদের শ্লোগান ছিল-“পুলিশ মারো অস্ত্র কাড়ো – সেই অস্ত্রে লড়াই করো।”

সিরাজ শিকদার মুক্তিযুদ্ধের বিরুদ্ধে ছিলেন। মুক্তিযুদ্ধকে তার দলের সবাই ‘দুই কুকুরের লড়াই' অভিহিত করতো। যুদ্ধ চলাকালে তাঁর দলের সশস্ত্র ক্যাডাররা পাকবাহিনী ও মুক্তিবাহিনীর বিরুদ্ধে আক্রমণ পরিচালনা করতো।

১৯৬৭ সালে পশ্চিম বাংলায় নকশাল আন্দোলনের প্রভাবে অনেক তরুণ যোগ দেয় সিরাজ শিকদারের বাহিনীতে। তবে বাহিনীর প্রধান ও বৃহত্তর অংশ ছিল আত্মগোপনে। স্বাধীনতা যুদ্ধের পর রাজাকার ও দালালদের সন্তানদের বড় অংশ পূর্ব বাংলা কমিউনিস্ট পার্টির সাথে যুক্ত হয়।

দেশ স্বাধীন হবার পর থেকে সর্বহারা গ্রুপ সরকার, পুলিশ ও সাধারণ মানুষের ওপর ব্যপক অত্যাচার চালায়। সিরাজ শিকদার দেশে তার রাজত্ব প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে সর্বহারা বাহিনী নিয়ে বিভিন্ন এলাকায় সরকারের বিরুদ্ধে সশস্ত্র সংগ্রামে অবতীর্ণ হন। ১৯৭৪ সালের ২৮ ডিসেম্বর দেশে জরুরি অবস্থা ঘোষণার পর তিনি আত্মগোপন করেন।

১৯৭৫ সালে চট্টগ্রামের হালি শহরে সরকারের গোয়েন্দা বাহিনী কর্তৃক গ্রেফতার হন। পর তাঁকে বিমানযোগে ঢাকায় আনার পরে পালাতে গেলে পুলিশের গুলিতে নিহত হন বলে প্রেসনোটে বলঅ হয়েছিল।  ২ জানুয়ারি ছিল মৃত্যু বাষির্কি।



Comments



Pakkhik Sramik Awaz
Reg: DA5020
News & Commercial:
85/1 Naya Paltan, Dhaka 1000
email: sramikawaz@yahoo.com
Contact: +880 1712 557138, Fax: +880 77257 5347

Legal & Advisory Panel:
Acting Editor: M M Haque
Editor & Publisher: Zafor Ahmad

Developed by: Nex-Ge Technologies Ltd.