sa.gif

গ্রাহকের সাড়ে ৪ কোটি টাকা চুরি করলো ফার্স্ট সিকিউরটি ব্যাংক
আওয়াজ প্রতিবেদক ::




শাখাতে গ্রাহকের সাড়ে ৪ কোটি টাকা চুরি করলো ফার্স্ট সিকিউরটি ইসলামি ব্যাংক। ব্যাংকের কর্মকর্তারা এই টাকা নিজেরা ভাগাভাগি করে নিয়ে গ্রাহকের নামে ঋণ হিসাবে লিখে রাখে। টাকা ভাগাভাগির আগেই এ সব কর্মকর্তার  গ্রাহকের কাছে থেকে ব­াঙ্ক প্যাড ও চেকে স্বাক্ষর করিয়ে রাখে। ইসলামি শরীয়া ভিত্তিক পরিচালিত এই ব্যাংকের অনৈসলামিক কার্যকলাপ সম্পন্ন হয়েছের্ ফার্স্ট সিকিউরটি ইসলামি ব্যাংকের সিলেট শাখায়।  সম্প্রতি বাংলাদেশ ব্যাংকের পরিদর্শনের বিষয়টি ধরা পড়ে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের সংশি­ষ্ট সুত্র জানায়, সিলেটের মো. মঈূনুল ইসলাম খসর“ হোটেল নির্মাণ করার জন্য ২০০৯ সালে ব্যাংকের সিলেট শাখা থেকে ৭ কোটি টাকা ঋণের আবেদন করেন। আবেদনের প্রেক্ষেতে একই বছরের  ৪ নভেম্বর দুই কোটি টাকা ঋণ মঞ্জুর করে ফার্স্ট সিকিউরটি ইসলামি ব্যাংকের ওই শাখা।  সে সময়ে ওই শাখাতে ম্যানেজার হিসাবে কর্মরত ছিলেন আবু রাশেদ।   ব্যাংক থেকে ময়নুল ইসলামের কাছে ব­াঙ্ক প্যাড ও চেক স্বাক্ষর করিয়ে রাখে। এক বছর সময়ে হোটল পুরোপুরি নির্মাণের আগেই মইনুল ইসলাম খসরুর টাকা শেষ হয়ে যায়। আবার সাড়ে চার  কোটি টাকা ঋণের জন্য আবেদন করেন তিনি। বাংলাদেশ ব্যাংকের পরিদর্শনে দেখা যায় মইনুল ইসলাম খসর“ ঋণের জন্য পুনরায় আবেদন করায় তড়িঘড়ি করে  ৯দিনের মধ্যে সাড়ে চার কোটি টাকা ঋণ মঞ্জুর করে। কিন্তু ওই ঋণের অর্থ মইনুল ইসলামকে না দিয়ে শাখার ম্যানেজার আবু রাশেদ, শাখার এসভিপি মহসীন উদ্দিন ও জোনাল ম্যানেজার রইস উদ্দিন আনসারি ভাগা-ভাগি করে নেয়। এ সময় মইনুল ইসলাম খসরুর কাছে থেকে তার প্রতিষ্ঠানের কাছে থেকে স্বাক্ষর  করে রাখা ব­্যাঙ্ক প্যাড ও চেকে টাকার অঙ্ক বসিয়ে দলিল হিসাবে তার নথিতে রাখে। পরে বিষয়টি মইনুল ইসলাম জানতে পারলে  বিভিন্ন দপ্তরে এর প্রতিকার চেয়ে আবেদন করতে থাকেন। সম্প্রতি বাংলাদেশ ব্যাংকের পরিদর্শনে বিষয়টি উঠে আসে।
 
এ ব্যাপারে ফার্স্ট সিকিউরটি ইসলামি ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি)  সৈয়দ ওয়াসেক মো. আলী’র মতামত চেয়ে কয়েকবার তার মোবাইল ফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তিনি রিসিভ করেননি। বিষয়টি সম্পর্কে বক্তব্য চেয়ে এমডি’র  মোবাইল ফোনে বার্তা পাঠালে তিনি কোন জবাব দেননি। তার অফিসের ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি শ্রমিক আওয়াজ  সাথে কথা বলতে রাজি হননি। এমডির ব্যক্তিগত কর্মকর্তার মাধমে এই প্রতিবেদককে ব্যাংকের জনসংযোগ কর্মকর্তা আযম খানের সাথে কথা বলতে বলেন।  এ ব্যাপারে আযম খান  বলেন,  তিনি আগামী কাল (বৃহস্পতিবার)  কথা বলবেন বলবেন।



Comments





Pakkhik Sramik Awaz
Reg: DA5020
News & Commercial:
85/1 Naya Paltan, Dhaka 1000
email: sramikawaznews@gmail.com
Contact: +880 1972 200 275, Fax: +880 77257 5347

Legal & Advisory Panel:
Acting Editor: M M Haque
Editor & Publisher: Zafor Ahmad

Developed by: Expert IT Solution